ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটে প্রশ্নের যে ধরণ – সাধারণ জ্ঞান পার্ট ১

বাংলাদেশের বিষয়বলী

সাধারণ জ্ঞান এমন একটা বিষয় যা আমাদের অনেক গুলা ইউনিটে লাগে।
মনে করো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটা ইউনিটে লাগে।এর থেকে বাহিরে গিয়ে।তুমি জাহাঙ্গীরনগরে যাও মেডিকেলে পরিক্ষা দিতে বা ঢাকার বাহিরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়,রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে পরিক্ষা দিতে যাবে সাধারণ জ্ঞান লাগবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটে বা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যে কোনো ইউনিটেই প্রশ্নের যে ধরণ তা কিন্তু বদলাতে যাচ্ছে।কারন আমাদের লিখিত পরিক্ষা দিতে হচ্ছে।

৬০+৪০-১০০
৬০ মার্ক টিক চিহ্ন
৪০ মার্ক লিখিত

আমরা আসলে যানি না এই ১০০ মার্ক এর কত শতাংশ প্রশ্ন সাধারণ জ্ঞান এর হবে।
কম পক্ষে ৫০ মার্কের প্রশ্ন সাধারণ জ্ঞান এর হবে।তাই সাধারণ জ্ঞান তোমাদের পড়তে হবে।
অনেকে বলে সাধারণ জ্ঞান এর তো কোনো সিলেবাস নাই।কি করে পড়বো?
সিলেবাস নাই এটা ঠিক।কিন্তু আমরা যদি একটু ভাগ ভাগ করে পড়ি তাহলে আমরা সহজে বুঝতে পারবো।
সাধারণ জ্ঞান এ তোমাকে বিভিন্ন ধরণের প্রশ্ন করা হবে।তুমি যে শতভাগ প্রশ্নের উওর পারবে তা না।সব পড়ে ফেললেও তোমার কিছু কিছু অংশ বাদ পরে যায়।

বাংলাদেশের বিষয়াবলী কে যদি ভাগ করতে চাই তাহলে সিলেবাস এমনটা দাড়ায়।

  • ইতিহাস
  • ভূগোল ও ভূপ্রকৃতি
  • প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা
  • শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি
  • স্থাপত্য ও স্থাপনা
  • ব্যক্তি
  • পদক ও পুরস্কার
  • সম্পদ
  • রাষ্ট্র ও সরকার
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  • ক্রীড়া
  • সাম্প্রতিক ঘটনাবলী

 

মোট আমাদের বিষয় দাড়ায় ১২টি।তার মধ্যে সব থেকে গুরুত্ব বিষয়টা হচ্ছে সাম্প্রতিক ঘটনাবলী।কারণ এইখান থেকে অনেক বড় একটা প্রশ্ন হয়।অর্ধেক অন্যান্য গুলো থেকে হলেও বাকি অর্ধেক প্রশ্ন হয় সাম্প্রতিক ঘটনাবলী থেকে।এখন আমরা জেনে নেই কোন বিষয় গুরুত্বপূর্ন।

  • মহা গুরুত্বপূর্ন
  • গুরুত্বপূর্ন
  • কম গুরুত্বপূর্ন

এই লাল,সবুজ এবং নীল রং গুলো দেয়ার কারণ হলো আমরা সহজে বুঝতে পারবে
কোন কোন বিষয়গুলো গুরুত্বপূর্ন।

ইতিহাস

ইতিহাস দিয়ে যদি শুরু করি।ইতিহাস থেকে প্রতি বছর প্রশ্ন হয়।ইতিহাস থেকে দুই একটা প্রশ্ন হবেই।প্রশ্ন হচ্ছে এর মধ্যে থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ন কোনটা কম গুরুত্বপূর্ন কোনটা?

মুক্তিযুদ্ধ

মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কম বেশি প্রতি বছর প্রশ্ন হয়। মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে প্রশ্ন হয় নাই এমন বছর খুবই কম আছে।মুক্তিযুদ্ধ কি ধরণের প্রশ্ন হয়?যদি দুই একটা উদাহরণ দেই।

মুজিবনগর নিয়ে প্রশ্ন হতে পারে।ছয়দফা নিয়ে প্রশ্ন হতে পারে।বীরশ্রেষ্ঠ নিয়ে প্রশ্ন আসে।খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা কারা ছিল তা নিয়ে প্রশ্ন আসে।এগারোটি সেক্টর এর কমান্ডর কারা ছিল তা নিয়ে প্রশ্ন হয়। মুক্তিযুদ্ধ প্রত্যেক বছরই কিছু না কিছু প্রশ্ন হয়।

পাকিস্তানি শাসনামল

পাকিস্তানি শাসনামল নিয়েও প্রশ্ন হয়।প্রথম গভার্নর কে ছিলেন?প্রথম রাষ্ট্রপতি কে ছিলেন?প্রথম প্রধানমন্ত্রী কে ছিলেন? এই ধরণের প্রশ্ন গুলো প্রায়ই হয়ে থাকে।

ব্রিটিশ শাসনামল

ব্রিটিশ শাসনামল থেকে সাধারণত প্রশ্ন যেটা হয় তা হলো।এই জিনিসটা কার আমলে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল?ঘোড়ার ডাক কার আমলে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল?কিংবা চিরস্থায়ী বন্ধবস্ত কার আমলে প্রতিষ্ঠিত হয়?পাঁচশালা বন্ধবস্ত কার আমলে প্রতিষ্ঠিত হয়?এই ধরণের প্রশ্ন গুলো ব্রিটিশ শাসনামল থেকে আসে।এর বেশি তেমন কোনো প্রশ্ন আসে না।

বিদ্রোহ,বিপ্লব, যুদ্ধ

সিপাহী বিদ্রোহ কোথায় হয়েছি?তার ফলশ্রুতিতে কত হয়েছ?কতজন সিপাহীকে ফাঁসিয়ে দেয়া হয়েছিল?কোথায় ফাঁসিয়ে দেয়া হয়েছে?কোন বিদ্রোহ কোথায় হয়েছে?ফরায়েজি আন্দোলন,ফরিক বিদ্রোহ,সাঁওতাল বিদ্রোহ,এই ধরনের বিদ্রোহ গুলো কে নেতৃত্ব দেয়েছেন?কারা করেছে?এই গুলো একটু একটু জানতে হবে।যেহেতু লিখিত পরিক্ষা আছে।তাই এইসব বিষয়ে গুরুত্ব দিতে হবে।

ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব, ঐতিহাসিক স্থান

ঘটনা গুলো কোথায় ঘটেছে?ঘটনাটি কে ঘটিয়েছেন এই সংক্রান্ত প্রশ্ন গুলো হবে।অর্থাৎ যদি আমরা একটু মনে রাখার মতো করে পড়তে চাই তাহলে।

  • নাম
  • কে করেছেন?এটা বেশি গুরুত্ব পূর্ন।এটা কিন্তু জানতেই হবে।
  • স্থান
  • কোথায় করেছেন?এটাও গুরুত্ব পূর্ণ।
  • ঘটনা

এখন যেহেতু লিখিত পরিক্ষা শুরু হয়ে গিয়েছে।ঘটনা অবশ্যই জানতে হবে।এবং পুড়া ঘটনাই জানতে হবে।
৬দফা কি জানতে হবে।ফরায়েজি আন্দোলনে কি হয়েছিল ঘটনাটি জানতে হবে।হাজী শরিয়ত উল্লাহ কি করছিল সেটা জানতে হবে।

তারিখ

তারিখ ও আসবে।কিন্তু তারিখের থেকেও গুরুত্ব পূর্ন বাকি তিনটা।তারিখ মনে রাখা একটু কঠিন।যে সকল তারিখে জাতীয় দিবস আছে।সেই সকল তারিখ সংক্রান্ত প্রশ্ন বেশি আসে।

  • ইউরোপীয় ঔপনিবেশ,
  • মুঘল আমল,
  • নবাবী শাসন

এই তিনটা থেকে তুলনামূলক কম প্রশ্ন হয়।বড়জোর প্রশ্ন হতে পারে কত সালে পর্তুগীজ শাসনামল শুরু হয়েছিল? বাংলা শেষ নবাব কে?সেন বংশের শেষ রাজা কে?মোর্জ বংশের শেষ রাজা কে?তবুও খুব কম প্রশ্ন আসে।তাছাড়া তেমন কোনো প্রশ্ন আসে না।
যারা বি সি এস দিচ্ছেন তাদের জন্য এগুলি খুবই গুরুত্বপূর্ন।তাদের এইখান থেকে প্রশ্ন হতে পারে।

প্রাচীন ইতিহাস

চার পাঁচ হাজার বছর আগের প্রাচীন ইতিহাস বা আট নয়শ বছর আগের যে প্রাচীন ইতিহাস নিয়ে প্রশ্ন হতে পারে।ধরেন বার শতাপদীর সে সময়ের মহাকবি দের সময় এর আলোচনা গুলো,চর্যাপদ এর সময়ের আলোচনা গুলো। সেই আলোচনা গুলো নিয়ে প্রশ্ন একটু কম হয়।

ভূগোল ও ভূপ্রকৃতি

এই বিষয়গুলোকে লাল,সবুজ ও নীল রং দিয়ে মার্ক করেছি।কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গুলো জেনে নেই।

বিভাগ,জেলা,উপজেলা

অদ্ভুত ধরনের প্রশ্ন হয়।যেমন বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণের জেলা কোনটা?উওরের জেলা কোনটা?সবচেয়ে ছোট জেলা কোনটা?সবচেয়ে বড় জেলা কোনটা?সবচেয়ে ছোট উপজেলা কোনটা?সবচেয়ে বড় উপজেলা কোনটা?জনসংখ্যা বড় কোনটা?জনসংখ্যা ছোট কোনটা?এধরণে অনেক প্রশ্ন আসতে পারে।

পাহাড়-পর্বত

সবচেয়ে বড় চুড়া কোনটা?সবচেয়ে বড় পর্বত কোনটা?সমভূমি কোথায় অবস্থিত?এধরণে অনেক গুলো ভূপ্রকৃতির প্রশ্ন আসতে পারে।

নদী

প্রথম জানতে হবে,নদীটা কোথায় উৎপন্ন হয়েছে?পদ্মা নদী,ব্রহ্মপুত্র নদী কোথায় উৎপন্ন হয়েছে?তারপর জানতে হবে পদ্মা এবং যমুনা কোথায় মিলিত হয়েছে?পদ্মা এবং মেঘনা কোথায় মিলিত হয়েছে?এভাবে করে বিভিন্ন নদী একে অপরের সাথে কোথায় মিলিত হয়েছে এসব তোমাকে জানতে হবে।

ভৌগলিক সীমারেখা

এটা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ন। যেমন, ভারতের কয়টা জেলায় আমাদের সীমান্ত আছে?আমাদের পশ্চিমে ভারতের কোন রাজ্য? আমাদের কোন জেলায় ভারত এবং মায়ানমার উভয় দেশের সীমান্ত আছে?এই ভৌগলিক সীমারেখা কিন্তু খুব জটিল একটা বেপার।

ভূমি ও জনপদ

এবং আবহাওয়া ও জলবায়ু
এইখান থেকে প্রশ্ন হয় যেমন। কোন আদিবাসী কোথায় বসবার করেন?তারা পিতৃতান্ত্রিক না মাতৃতান্ত্রিক?
আবহাওয়া অধিদপ্তর কোথায় অবস্থিত?এটা কোন মন্ত্রণালয় আন্ডারে অবস্থিত?ইত্যাদি ইত্যাদি ছোট ছোট প্রশ্ন আসবে।

প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা

গবেষণা কেন্দ্র, চা গবেষণা কেন্দ্র কোথায়?নদী গবেষণা কেন্দ্র কোথায়?মৎস গবেষণা কেন্দ্র কোথায়? মাটি গবেষণা কেন্দ্র,কৃষি গবেষণা কেন্দ্র,ধান গবেষণা কেন্দ্র,এরকম বিভিন্ন গবেষণা কেন্দ্র আছে।কোনটা কোথায় অবস্থিত এইসব ধরণের প্রশ্ন আসবে।

সরকারি প্রতিষ্ঠান

যেগুলো সরকারের নিজস্ব পরিচালনার জন্য।যেমন মন্ত্রণালয়,সচিবালয় সেসব সংক্রান্ত প্রশ্ন আসবে।

আন্তর্জাতিক সংস্থায় সদস্যপদ

আন্তর্জাতিক সংস্থা গুলোতে বাংলাদেশের সদস্যপদ এটা খুব গুরুত্বপূর্ন প্রশ্ন।বাংলাদেশ জাতিসংঘের সদস্যপদ কবে লাভ করেছে? বাংলাদেশ ও আই সি সদস্যপদ কবে লাভ করেছে? বাংলাদেশ জাতিসংঘের কততম সদস্য? এই প্রশ্নটা ইতিমধ্যে অনেকবার এসেছে।

বেসরকারী প্রতিষ্ঠান

যেমন কুমিল্লা বার্ড এর প্রতিষ্ঠাতা কে? বা ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা কে? এই ধরনের প্রশ্ন গুলো তুলনামূলকভাবে কম গুরুত্বপূর্ণ।কিন্তু প্রশ্ন হতে পারে।

বিশ্ববিদ্যালয়

বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রিক অনেকগুলো প্রশ্ন হয়।যেমন,সাম্প্রতিক কোন জেলায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং সেটার নাম কি?

প্রতিরক্ষা

এখান থেকে প্রশ্ন খুব কম হয়। যেমন পুলিশ কে কেন্দ্র করে প্রশ্ন, আর্মি কে কেন্দ্র করে প্রশ্ন,নৌ বাহিনী কে কেন্দ্র করে প্রশ্ন । এই প্রশ্ন খুবই কম হয়।

Add Comment