বই পড়ার অভ্যাস যে ভাবে করবো

যখন আমি কলেজে পরতাম।আমার কখনো পাঠ্যবই এর বাহিরে অন্য কোনো বই পড়ার অভ্যাস ছিল না।
অভ্যাস টা শুরু হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় উঠার পর থেকে।

প্রতিদিন যখন বিশ্ববিদ্যালয় যেতাম।তখন বিশ্ববিদ্যালয় এর সামনে এক চাচা বই বিক্রি করতো।প্রতিদিন বাসে উঠার সময় বই গুলো দেখে যেতাম।একদিক শখ করে একটা বই কিনে নিয়ে আসলাম।পুরোটা বই পরলাম।পরার পর যা অনুভূতি হলো সেটা হল বই পড়ার প্রতি আগ্রহ জমে গেল।এমন করে।একটা করে বই কিনতাম।সেটা পড়া শেষ করে আবার একটা বই কিনে নেয়ে আসতাম।এমন করতে করতে এখন আমার বাসায় একটি লাইব্রেরি হয়ে গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে যাবার সময় দুই থেকে তিন ঘন্টা জেমে বসে থাকতে হতো।বিরক্ত হয়ে যেতাম বসে থাকতে থাকতে।তখন ভাবলাম চাচার থেকে বই কিনি।সময় টাও পার হবে। বই ও পড়া হবে।আর আমি বইগুলো সেই সময়টা তে পরতাম।এবং ভালোই লাগছিলো।

এমন করে করে অনেক বই কিনলাম আর পড়লাম।চাচার কাছে আমি ছিলাম একজন ক্রেতাআর চাচা ছিল আমার কাছে এমন একজন মানুষ যিনি আমাকে বই পড়া শিখিয়েছেন।চাচা যদি ফুটপাতে বই না বিক্রি করতেন।তাহলে হয়তো আমার বই পড়ার অভ্যাস কখনোই হতো না।

আমার জিবনের এর একটা গল্প বলি

আমি যখন ষষ্ট শ্রেণীতে পরি। তখন স্কুলে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র থেকে বই দেয়া হতো।আমার খুব ইচ্ছে হলো ওখান থেকে বই নিয়ে পড়ার।তাই ওখানে রেজিস্ট্রেশন করি।আমার অনেক বন্ধুরাও করলো।আর আমি প্রতি সপ্তাহে একটি করে গল্পের বই নিয়ে পরতাম।এর পরের সপ্তাহে ঐ বইটি দিয়ে অন্য আর একটি বই নিতামএমন করে অনেক গুলো বই পড়া শেষ করলাম।এবং বই গুলো পড়া শেষ করার পর একটা পরীক্ষা নেয়া হলো।পরীক্ষাটা এজন্য নেয়া হয়েছিল। যে আমরা বই গুলো পরে কি কি শিখলাম।পরিক্ষাতে প্রথম হলাম। অনেক খুশি হয়েছিলাম সে দিন।এমন করে আসতে বই পরার অভ্যাস গড়ে তুললাম।

আমরা যখন অবসর থাকি।তখন যদি একটু একটু করে বই পড়ার অভ্যাসটা শুরু করি। তাহলে আমাদের বই পড়ার আগ্রহ ও অভ্যাস দুটাই হবে।বই পড়লে আমার জ্ঞান বারে এবং এর সাথে সাথে আমদের বিভিন্ন তথ্য জানা হয়।

Add Comment