যখন অনেক বেশি আলসেমি লাগে

যখন কোনো কাজ করা সহজ।তখন আমরা সবাই সেটা করতে পারি।কিন্তু আসল প্রশ্ন আসে যখন কাজটা করা কঠিন।তখন কয়জন কাজটা টিকে থাকতে পারে।এ জিনিশটা অনেক জায়গা হয়।যখন আপনি শরীর চর্চা।অনেক সময় বলা হয়। মনে আপনি এিশ বার পুসআপ দিতে পারেন। এর একটু চিল্লা চিল্লি করে ট্রেইনার আপনাকে আরো দুই পাঁচ বার পুস দেয়াবে।আপনি পারছেন না।তার পরও জেদ করে দিচ্ছেন।এটাই আসলে জেদ। জিনিশটা হচ্ছে এই যে জেদ।যাদের মধ্যে এ জেদটা আছে তারা অনেক দূর যেতে পারে।অনেকে হয়তো বা লিখতে চাচ্ছে না।খুব বিরক্ত হচ্ছে। তবুও জোড় করে বসা।বা কেও আঁকতে চাচ্ছে না।তবুও জোড় করে আঁকা আঁকি করা।যদিও আমার আঁকতে ইচ্ছে করছে না আমার যথেষ্ট ডিসিপ্লিন আছে। যে আমি কাজ টা এ সময়ে করি।

এবং এটা নিয়ে একটা উক্তি ছিল। আপনি আপনার জিবনে খুব একটা দূরে যেটে পারবেন না যদি আপনি তখনি কেবল কাজ করেন যখন আপনার কাজ করতে ইচ্ছা করে।কারণ আসল কাজ গুলা তখন হয়।যখন আপনি কাজ করতে ইচ্ছা করে না।এবং এটা অনেক মানুষ জানে না।এ জিনিশ টা আমি নিজের মধ্যে ডেভোলাপ করার চেষ্টা করেছি। যখন করতে ইচ্ছা করছে।যখন আমার হাটতে ইচ্ছা করছে না।আমি তখন বের হই যেন আমার রুটিনটা থাকে।আমি খেয়াল করেছি যখন বের হতাম আসলেই তখন রাস্তার মধ্যে একটা পাতিল খুঁজে পেলাম বা সুন্দর একটা ছবি খুজে পেলাম।প্রতিদিন ই ভালো কিছু একটা হয়।যদি আমরা জোর করে কাজটা করি তখন একটা ডিসিপ্লিন চলে আসে।মনের যে ইচ্ছা সে কাজটা করেন।কিন্তু অনেক সময় মনের বিরুদ্ধেও কাজটা করেন।কারণ একটা কথা আছে।”To do what you love doing you must do think is a don’t love doing.”যে কাজটা আমরা ইচ্ছার বিরুদ্ধে করবো। সে কাজটা করলে আমরা অনেক কাজ করতে পারবো।

Add Comment